স্যামসাং নাকি শাওমি কোন ব্র‍্যান্ডের ফোন ভাল!

স্যামসাং নাকি শাওমি কোন ব্র‍্যান্ডের ফোন ভাল!


বর্তমান সময়ে অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের জগতে জনপ্রিয় দুটি ব্র‍্যান্ড হলো স্যামসাং (Samsung) ও শাওমি (xiaomi)। এই দুই ব্র‍্যান্ডের ফোন অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের বাজারে অত্যাধিক জনপ্রিয়। ফোন কিনতে গেলে ক্রেতারা এই দুই ব্র‍্যান্ডের মধ্যে কোন ব্র‍্যান্ডের ফোন বেছে নিবেন তা নিয়ে অনেকটা দ্বিধায় থাকেন।তাই, এই দুটি ব্র‍্যান্ডের মধ্যে কোন ব্র‍্যান্ডের ফোন কেনা ভালো হবে তা আজকের পোস্টে তুলে ধরার চেষ্টা করব। পাশাপাশি এই দুই ব্র‍্যান্ডের ফোনের সুবিধা ও অসুবিধার দিক তুলে ধরব। 


১. স্যামসাং (Samsung)


স্যামসাং একটি দক্ষিণ কোরিয়ার ইলেট্রনিক্স ব্র‍্যান্ড। স্যামসাংয়ের স্মার্টফোনগুলো বাজারে বেশ জনপ্রিয়। কারণ, স্যামসাংয়ের প্রায় প্রত্যেকটি ফোন গ্রাহকরা মানসম্পন্ন ক্যামেরা, উন্নত ডিসপ্লে ও দ্রুতগতির প্রসেসর পেয়ে থাকেন। অ্যান্ড্রয়েড ফোনের বাজারে স্যামসাং সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্র‍্যান্ড। এমনকি, স্যামসাংকে অ্যাপলের চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে গণ্য করা হয়। বিশ্বখ্যাত ব্র‍্যান্ড হিসেবে স্যামসাংয়ের আলাদা সুনাম রয়েছে। বর্তমানে অ্যান্ড্রয়েড ফোনের বাজারে ফোন বিক্রির দিক দিয়ে স্যামসাং ১ নম্বরে আছে।


২. শাওমি (Xiaomi)


শাওমি হচ্ছে একটি চীনা স্মার্টফোন ব্র‍্যান্ড। শাওমির ফোনগুলোর আকাশচুম্বী জনপ্রিয়তার কারণ হচ্ছে দামের তুলনায় এই ব্র‍্যান্ডের ফোনগুলোতে বেশি ফিচার পাওয়া যায়। তাই, শাওমির জনপ্রিয়তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। শাওমির অধিকাংশ ফোনে মানসম্পন্ন ক্যামেরা, শক্তিশালী ব্যাটারি ও বেশ ভালো পারফর্ম্যান্স পাওয়া যায়। বর্তমানে শাওমির বাজার দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। 



যেসব দিক দিক দিয়ে শাওমি এগিয়ে:


  • শাওমির প্রায় সব ফোনেই ভালোমানের ক্যামেরা পাওয়া যায়। 


  •  শাওমির ফোনের ব্যাটারি ব্যাক-আপ ভালো। 


  • শাওমির ফোনের পারফর্ম্যান্স স্যামসাংয়ের চেয়ে ভালো। 


  • শাওমি কমদামে ভালোমানের ফোন সরবরাহ করে থাকে। 


  • শাওমি ফোনের ডিজাইন সুন্দর। 



যেসব দিক দিয়ে শাওমি পিছিয়ে


  • শাওমি ফোনগুলো স্যামসাংয়ের মতো মানসম্পন্ন নয়।  


  • শাওমির ফোনগুলো স্যামসাংয়ের তুলনায় কম টিকে। 


  • শাওমির ফোনগুলো তাড়াতাড়ি গরম হয়ে যায়। 




যেসব দিক দিয়ে স্যামসাং এগিয়ে:


  • স্যামসাংয়ের ফোনের ক্যামেরা কোয়ালিটি বেশ ভালো 


  • স্যামসাংয়ের ফোনগুলোর ডিসপ্লে উন্নতমানের। 


  • স্যামসাং ফোনের পারফর্ম্যান্স বেশ ভালো। 


  • শাওমির তুলনায় স্যামসাংয়ের ফোন বেশিদিন টিকে। অর্থাৎ, স্থায়িত্ব বেশী। 




যেসব দিক দিয়ে স্যামসাং পিছিয়ে


  • স্যামসাং ফোনের দাম বেশী। 


  • দাম অনুযায়ী শাওমির তুলনায় স্যামসাং ফোনের ফিচার কম। 




কোন ফোনটি ভাল হবে!!


স্যামসাং ও শাওমির মধ্যে কোন ফোন সেরা তা নির্দিষ্ট করে বলা কঠিন। তবে, আপনি আপনার বাজেট অনুযায়ী সহজেই আপনার জন্য ভালো ফোনটি খুঁজে নিতে পারেন।যেকোনো ফোন কেনার ক্ষেত্রে বাজেট নির্ধারণ গুরুত্বপূর্ণ।  আপনার বাজেট যদি ১০ থেকে ১৫ হাজার হয়ে থাকে তাহলে শাওমির ফোন কেনাটাই ভালো হবে। তবে বেশিদিন ব্যবহার করার উদ্দেশ্যে ফোন কিনতে চাইলে স্যামসাং নেওয়াই ভালো হবে। এক্ষেত্রে, আপনার বাজেট যদি ১৫ হাজারের বেশি হয় তাহলে স্যামসাং ফোন কেনাটাই বেশি যুক্তিযুক্ত। যদিও, ১৫ হাজার + বাজেটে শাওমির অনেক বেশি ফিচারযুক্ত ফোন পাওয়া যায়। তবে, এই বাজেটে স্যামসাং ফোন নেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ। কারণ, শাওমির কোনো ফোন ৫ বছর টিকলে স্যামসাংয়ের ফোন ৮ বছর টিকবে। তাই, ১৫+ বাজেটে স্যামসাংয়ের ফোনই বেস্ট। কিন্তু আপনি যদি কমদামে ফ্লাগশিপ ফোন কিনতে চান তাহলে শাওমি ফোন নেওয়াই ভালো।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য